কেন্দুয়ায় ৮ বছর বয়সী মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ১০ বছরের ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টায় আটক শিক্ষক

ধর্ষন

কেন্দুয়ায় মাদরাসার ছাত্রীকে (৮) ধর্ষণ ও অন্য আরেক ছাত্রীকে (১০) ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে শিক্ষক আবুল খায়ের বেলালীকে আটক করেছে পুলিশ। কেন্দুয়া পৌর শহরের বাদে আঠারবাড়ি গ্রামের মা হাওয়া (আ:) কওমি মহিলা মাদরাসা থেকে শুক্রবার দুপুরে ওই শিক্ষককে আটক করা হয়।

এদিকে ওই শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী।

জানা গেছে, আবুল খায়ের বেলালী সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার গোনাকালী গ্রামের ইব্রাহিমের ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে কেন্দুয়া উপজেলায় স্বপরিবারে বসবাস করে আসছেন। আবুল খায়ের বাদে আঠারবাড়ি গ্রামে নবপ্রতিষ্ঠিত মা হাওয়া (আ:) কওমি মহিলা মাদরাসার শিক্ষক হিসাবে মাদরাসাটি পরিচালনা করে আসছিলেন।

শুক্রবার সকালে মাদরাসার এক ছাত্রীকে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করলে বিষয়টি টের পেয়ে এলাকার লোকজন ওই তাকে আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তাকে আটক করে থানা নিয়ে আসে।

কেন্দুয়া থানার ওসি মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান জানান, এক ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে বিষয়টি টের পেয়ে এলাকার লোকজন প্রথমে তাকে আটক করে। পরে পুলিশ অভিযুক্ত শিক্ষককে থানা নিয়ে আসে।

এর আগেও ওই শিক্ষক এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে জানিয়ে ওসি বলেন, ভিকটিম দুই শিশু ছাত্রীকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে এবং এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।