৭ বছরের শিশু সায়মাকে ধর্ষণের পর হত্যায় প্রধান সন্দেহভাজন হারুন গ্রেপ্তার

অপরাধ ধর্ষন

রাজধানীর ওয়ারীতে শিশু সামিয়া আক্তার সায়মাকে (৭) ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় প্রধান সন্দেহভাজন হারুনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর (ডিএমপি) গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সদস্যরা।

আজ রবিবার দুপুরে কালের কণ্ঠকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির ওয়ারী বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপ-কমিশনার (ডিসি) ইফতেখার আহমেদ। আজ ভোরেই তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান তিনি।

গ্রেপ্তারকৃত হারুনের বয়স ২০ থেকে ২২ বছর হবে বলে জানিয়েছেন ডিসি।

এর আগে মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা মূলহোতা হারুনকে শনাক্তের কথা জানান। সে সময় তিনি জানিয়েছিলেন, ওই ভবন ও আশপাশের ভবনের ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে যাচাই-বাছাই করা হয়েছে। সন্দেহে কয়েকজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত মূল অভিযুক্ত হারুনকে শনাক্ত করা হয়েছে। ওই ভবনেই একটি ফ্লোরে হারুনের ভাই বসবাস করতেন। এজন্য হারুন প্রায়ই ওই বাসায় আসা-যাওয়া করতেন।

এর আগে ওয়ারি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান জানিয়েছিলেন, ‘আমরা আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে শিশু সায়মা ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহভাজন একজনের নাম পেয়েছি। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। সে ওই ভবনেই থাকতো। তবে তাৎক্ষণিকভাবে ওই অভিযুক্তের নাম ও পরিচয় প্রকাশ করেননি তিনি।

এর আগে গতকাল শনিবার সকালে শিশুটির ময়নাতদন্তের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ সাংবাদিকদের জানান, শিশুকে ধর্ষণ করার পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়।