খিলক্ষেত ও মুন্সিগঞ্জে বন্দুক যুদ্ধে নিহত ২

অপরাধ

রাজধানীর খিলক্ষেতের তিনশ ফুট রাস্তায় র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

সোমবার রাত ১টার দিকে তিনশ’ ফুট রাস্তার দুমনী এলাকায় গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে বলে র‌্যাব-১ এর স্কোয়াড কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কামরুজ্জামানের ভাষ্য।

আনুমানিক ৩৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির নাম-পরিচয় জানাতে না পারলেও তাকে ‘মাদক চোরাকারবারি’ বলছে র‌্যাব।

কামরুজ্জামান বলেন, মাদক কেনাবেচার খবর পেয়ে র‌্যাবের একটি দল রাতে দুমনী এলাকায় অভিযানে যায়।

“মাদক কারবারিরা র‌্যাব সদস্যদের দিকে গুলি ছুড়লে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। কিছু সময় গোলাগুলি চলার পর কয়েকজন দৌঁড়ে পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়।

কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান র‌্যাব কর্মকর্তা কামরুজ্জামান।

তিনি বলেন, ঘটনাস্থল থেকে প্রায় দুই হাজার ইয়াবা, একটি বিদেশি পিস্তল ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে র‌্যাব।

মুন্সীগঞ্জে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মাদকের আসামি নিহত

মুন্সীগঞ্জে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক যুবক নিহত হয়েছেন; যিনি ১১ মাদক মামলার আসামি বলে র‌্যাবের ভাষ্য।

র‌্যাব-১১ এর কোম্পানি কমান্ডার পুলিশ সুপার এনায়েত মান্নান জানান, সদর উপজেলার রামশিং এলাকায় সোমবার গভীররাতে গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে।

নিহত মো. সুজন মিয়া (৩৬) সদর উপজেলার গোবিন্দনগর বাশতলা রিকাবীবাজার এলাকার মো.মোশারফ হোসেনের ছেলে।

র‌্যাব বলছে, সুজন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে ১১টি মাদকের মামলা রয়েছে।

এনায়েত বলেন, রামশিং এলাকায় অভিযানের সময় মাদক কারবারিরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি করে। এ সময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি করে।

“এক পর্যায়ে সুজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাকে উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।”

এ ঘটনায় এক র‌্যাব সদস্য আহত হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে এ র‌্যাব কর্মকর্তার ভাষ্য।

এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, পাঁচ রাউন্ড গুলি, দেড় হাজার ইয়াবা ও দেড় হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।